Preloader
img

পেইজ ও প্রোফাইল রিমুভ করছে মেটা, যদি আওয়ামী লীগ সংক্রান্ত পেইজ লিংকড থাকে

পেইজ ও প্রোফাইল রিমুভ করছে মেটা, যদি আওয়ামী লীগ সংক্রান্ত পেইজ লিংকড থাকে

সম্প্রতি নিউজ দেখলাম মেটা ৫০টি ফেইসবুক একাউন্ট ও লিংকৃত ৯৮ পেইজ রিমুভ করেছে, যা সম্পূর্ণ বাংলাদেশ আওয়ামি লীগ সম্পর্কৃত পেইজ ও একাউন্ট।

এর কারণটা কী? আসলেই কি মেটা বাংলাদেশের রুলিং পার্টির এক্টিভিটির রিরুদ্ধে যাচ্ছে? চলুন আজ থেকে ৬ মাস পেছনে যাই

২৫ শে ডিসেম্বর,২০২৩,সোমবারে ডিজিটালি রাইট গবেষণা প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশের পলিটিকাল এডস নিয়ে একটা কেস স্টাডি পাবলিশ করে, যার হেডলাইন ছিল Hits and Misses. এবং মূল টপিক ছিল বাংলাদেশের এক্টিভ পলিটিকাল এডস, ডিসক্লেইমার বিহীন এডস, মেটার সিস্টেমের বাইরে কাজ করা ইত্যাদি।

কেস স্টাডিতে দেখা যাচ্ছে, অনেক নন পলিটিকাল এডস ভুলে পলিটিকাল ক্যাটাগরিতে চলে যাচ্ছে, আবার অনেক পলিটিকাল এডস ডিসক্লেইমার ছাড় এডস রান করতেছে, ফেইসবুকে ভুল তথ্য দিয়ে ডিসক্লেইমার ক্রিয়েট করতেছে, ফেইক একাউন্ট থেকে এডস রান করতেছে, বিভিন্ন ধরনের কিওয়ার্ড ও প্রশ্ন ব্যবহার করে মেটার এডস পলিসির বাইরে গিয়ে কাজ করতেছে।

কেস স্টাডিতে পাওয়া গেছে যে, ৫০টি এক্টিভ পলিটিকাল এডস যা সরাসরি রাজনৈতিক ব্যক্তির পেইজ ও তাদের পার্টির পেইজ থেকে রান করা হয়েছে। যাতে সনাক্ত করা হয়েছে যে, ফেইসবুকের সিস্টেমকে বাইপাস করে তারা দীর্ঘদিন ধরে এডস রান করেছে, পলিটিকাল এডস হওয়া সত্ত্বেও ডিসক্লেইমার ছাড়া এডস রান করেছে।

৯জন এডভার্টাইজারের ৩১৪টি এডস এ ঠিকমতো ডিসক্লেইমার ক্রিয়েট করা হয়নি। মেটার পলিটিকাল এডস রুলস অনুযায়ী অবশ্যই বিজ্ঞাপনদাতার নাম,ফোন নাম্বার, ইমেইল, ও পুরোপুরি ঠিকানা দিতে হবে।

কেস স্টাডিতে আরো পাওয়া যায়, ১৪২০টি এডস পলিটিকাল না হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। মেটা এটা নিয়ে ভুলও স্বীকার করেছে অর্থাৎ  incorrectly detected as political ads.  এর মধ্যে অনেক বই,নোবেল, ডিজিটাল প্রোডাক্ট, ভিসা প্রসেসিং নিয়ে কাজ করে।

এই কেস স্টাডির মূল উদ্দেশ্য ছিল-- বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের আচারণ-বিধির প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরা, তাদের ডিজিটাল প্লাটফর্ম গুলো ব্যবহার করে পলিসি অনুযায়ী নিয়মিত অডিট করা ও সরকারের সাথে কোলাবোরেশান করে এ বিষয়ে আরো শক্তিশালী এবং সহযোগিতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করা।

সুতরাং, ডিজিটালি রাইট গবেষণা প্রতিষ্ঠান এই কেস স্টাডি অনুযায়ী মেটা এই  নতুন পদক্ষেপ নিয়েছে হয়তো। সেই সাথে এটাও হতে পারে, কেউ হয়তো নির্দিষ্ট কোন পার্টির পেইজ বা প্রোফাইলে নিয়ে ফেইসবুক লিগ্যাল টিমে অভিযোগ করেছে।